মহাসচিবকে আহ্বায়ক করে শক্তিশালী কেন্দ্রীয় মনিটরিং সেল গঠন-  ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

১১ই এপ্রিল, শনিবার

প্রেস ব্রিফিং- গাজী আতাউর রহমান, যুগ্ম মহাসচিব, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

প্রতিবেদন ডেস্কঃ  একটি জনকল্যাণমুখী ও দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দল হিসেবে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ জনগণের যে কোন দুর্যোগ ও সংকটে সর্বোচ্চ সাধ্য নিয়ে দুর্দশাগ্রস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। বর্তমান ভয়াবহ করোনা সংকটেও গোটা দেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এবং -এর সকল সহযোগী সংগঠনের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মী ও সদস্যগণ জনকল্যাণে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
লকডাউন -এর শুরু থেকেই সারাদেশের নেতাকর্মীরা মুহতারাম আমীরের নির্দেশনা অনুযায়ী মানুষের বাড়ি বাড়ি সাধ্য অনুযায়ী ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে।
করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশে মৃত্যু শুরু হলে, নতুন সংকট দেখা দেয় মৃতের জানাজা ও দাফন কাফন নিয়ে। এমনকি এখন স্বাভাবিক মৃত্যুতেও মানুষ আতঙ্কিত। কোথাও কোথাও মুমূর্ষু মানুষকে হাসপাতালে নেয়ার জন্য কোন সহযোগী পাওয়া যাচ্ছে না। চিকিৎসার অভাবে রাস্তায় পরেও মানুষ কাতড়াচ্ছে।
এসব মানবিক বিষয়গুলো ইসলামী আন্দোলন এড়িয়ে যেতে পারে না।
গত কয়েকদিন আগে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মুহতারাম নায়েবে আমীর, মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম করোনা আক্রান্ত মৃত ব্যক্তির জানাযা ও দাফন কাফনের ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়ার নির্দেশ দেন।
গত কয়েকদিন এ নিয়ে আমি সংশ্লিষ্ট অনেক দায়িত্বশীল -এর সঙ্গে কথা বলি।
আলহামদুলিল্লাহ, ইতিমধ্যে সিলেট, ফেনী, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বেশ কয়েকটি জেলা টিম গঠন করে মাঠে নেমে পড়েছে। ঢাকা মহানগরও ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে।
ইতিমধ্যেই মুহতারাম মহাসচিবকে আহ্বায়ক করে একটি শক্তিশালী কেন্দ্রীয় মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে।
কেন্দ্রীয় মনিটরিং সেলের একজন সদস্য হিসাবে মুহতারাম মহাসচিবের নির্দেশনাক্রমে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রত্যেকটি জেলা ও মহানগর শাখা কে বিশেষভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে যে, আপনারাও প্রত্যেকটা শাখায় ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ, মৃতের জানাজা ও দাফন-কাফন, অসুস্থ রোগীদের চিকিৎসা সহায়তাসহ করোনা পরিস্থিতিতে যেকোনো ধরনের জনকল্যাণমূলক কাজের তদারকী, মনিটরিং এবং পারস্পরিক যোগাযোগ অব্যাহত রাখার জন্য ন্যূনতম পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি মনিটরিং সেল গঠন করুন।
সব জেলা, মহানগর এবং উপজেলা পর্যায়ে মৃত ব্যক্তির জানাযা ও দাফন কাফনের জন্য আলাদা টিম গঠনের চেষ্টা করুন।
ত্রাণ তৎপরতা, চিকিৎসা সহায়তা এবং জানাযা ও দাফন-কাফনের ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসন এবং সিভিল সার্জন -এর সঙ্গে প্রয়োজনীয় যোগাযোগ রক্ষা করুন। সর্বদা ব্যক্তিগত সর্তকতা ও সুরক্ষা বজায় রাখুন।
বাকি সময়ে সময়ে কেন্দ্রীয় মনিটরিং সেল -এর পক্ষ থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি আপনাদেরকে টেলিফোনে প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দিবেন।
আল্লাহ সুবহানাহু তাআলা সবাইকে সুস্থ ও শান্তিতে রাখুন এবং পরিস্থিতিকে দ্রুত স্বাভাবিক করে দিন।


গাজী আতাউর রহমান
যুগ্ম মহাসচিব,
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

vd-11042020

Gazi Ataur Rahman

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *