ভাসমান আইসোলেশন লঞ্চ সুরভী ৮

করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগীদের চিকিৎসায় বরিশাল-ঢাকা রুটের যাত্রীবাহী লঞ্চ সুরভী-৮ কে ভাসমান আইসোলেশন ইউনিট হিসেবে প্রস্তুত করা হয়েছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) সহযোগিতায় ও বরিশাল জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় এ ভাসমান আইসোলেশন ইউনিট প্রস্তুত করা হয়েছে।

 

শুক্রবার রাতে বরিশাল নদী বন্দরের টার্মিনালে ‘ভাসমান আইসোলেশন ইউনিট’ হিসেবে লঞ্চটিকে ঘোষণা করেন প্রশাসনিক কর্মকর্তারা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) প্রশান্ত কুমার দাস, বরিশাল নদী বন্দর কর্মকর্তা ও বিআইডব্লিউটিএ’র যুগ্ম পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) আজমল হুদা মিঠু সরকার এবং জেলা প্রশাসনের সহকারি কমিশনার এসএম রবিন শীস।

শনিবার সকালে বিআইডব্লিউটিএ’র যুগ্ম পরিচালক আজমল হুদা মিঠু সরকার জানান, ভাসমান আইসোলেশন ইউনিট হিসেবে প্রস্তুত রাখা লঞ্চটিতে ৪২টি সিংগেল, ৩৪টি ডাবল, চারটি ফ্যামিলি, দুইটি সেমি ভিআইপি ও চারটি ভিআইপি কেবিন আছে। সিভিল সার্জনের চাহিদা পেলেই তাদের নিকট লঞ্চটি হস্তান্তর করা হবে।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *