কিশোর হত্যার ব্যাখ্যা দিল বি এস এফ

পঞ্চগড় সীমান্তে গত রবিবার বাংলাদেশি কিশোরকে লক্ষ্য করে গুলি চালানোর ব্যাখ্যা দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরী বাহিনী বিএসএফ। শিমুন রায় (১৬) নামে ওই বাংলাদেশি কিশোর সীমান্তের কাছে নিজেদের পাটেক্ষেত বেড়া দেওয়ার সময় বিএসএফ তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় বলে এ দেশের গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। গুরুতর আহত ওই কিশোর পরবর্তীতে মারা যায়।

 

বাংলাদেশের গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে বিএসএফ বলেছে, ঘটনাস্থল পঞ্চগড়ের প্রধানপাড়া গ্রাম আন্তর্জাতিক সীমান্তের খুব কাছে। ওই গ্রামের বাসিন্দারা নিয়মিতভাবেই সীমান্ত লংঘন করে ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে গবাদি পশু চড়ায়। সেদিন বাংলাদেশি গ্রামবাসীদের হামলার মুখে নিরূপায় হয়ে আত্মরাক্ষার্থে তাদের জওয়ান গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছে।

বিএসএফের দাবি, ওই গুলির ঘটনার একদিন আগেও গ্রামবাসীদের গবাদিপশু ভারতীয় ভূখণ্ড থেকে বাজেয়াপ্ত করে পরবর্তীতে বিজিবির উপস্থিতিতে সেগুলো ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। সে সময় বিএসএফ বিজিবিকে অনুরোধ জানিয়েছিল, সীমান্ত এলাকার গ্রামবাসীরা যেন আন্তর্জাতিক সীমান্ত মেনে চলে।

 

বিএসএফের দাবি, এর একদিন পরই গত রবিবার গ্রামবাসীরা বিএসএফের হুঁশিয়ারি অগ্রাহ্য করে গবাদি পশু চড়াতে ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে। সেদিন বেলা ৩টার দিকে বেশ কিছু গ্রামবাসী অবৈধভাবে ভারতে ঢুকে দায়িত্বরত বিএসএফ জওয়ানকে গালাগাল ছাড়া ও তার ওপর হামলা চালানোর চেষ্টা করে। সে সময় তারা বিএসএফ জওয়ানের ওপর পাথর ছুঁড়তে থাকে, বাঁশ দিয়ে পেটায় এবং তার রাইফেল ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে।

 

বিএসএফের দাবি, বিপদ বুঝতে পেরে আত্মরক্ষার্থে এবং নিজের রাইফেল রায় নিরুপায় হয়ে তাদের ওই জওয়ান গুলি চালাতে বাধ্য হয়। গ্রামবাসীর হামলায় ওই জওয়ানও আহত হয়েছে এবং পরে তাকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিএসএফ জানতে পেরেছে, একজন বাংলাদেশি আহত ও পরে নিহত হয়েছে।

বিএসএফ আরো দাবি করেছে, তাদের কর্মকর্তারা ৫৬ বিজিবির কমান্ডিং অফিসারের সঙ্গে ফোনালাপে গ্রামবাসীদের অব্যাহতভাবে সীমানা লংঘন ও দায়িত্বরত বিএসএফ জওয়ানের ওপর হামলার বিষয়টি অবহিত করেছে।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *