খামার শ্রমিকের হজ্জে যাওয়ার জমানো টাকা দিলেন করোনা আক্রান্তদের

ভারতের কর্নাটকের মঙ্গলুরুর নামক অঞ্চলের বাসিন্দ আবদুর রহমান। তিনি একজন খামার শ্রমিক। বহু বছর ধরে কঠোর পরিশ্রম করে অর্থ জমা করছিলেন। জমানো সেই অর্থ দিয়ে সারা জীবনের স্বপ্ন পূরণ করবেন। মক্কা ও মদীনায় হজ পালন করতে যাবেন তিনি।

 

আবদুর রহমান এই স্বপ্ন হয়তো আগামী বছরই পূরণ করতে পারতেন। কিন্তু তিনি উপলব্ধি করলেন, করোনা মহমারিজনিত কারণে জীবিকা হারিয়েছেন বা খাবার খেতে পারছেন না; এমন ব্যক্তির মুখে খাবার তুলে দেওয়া এখন সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তাই হজের জন্য জমানো অর্থ দিয়ে কিনে নিলেন খাবার সামগ্রী। তুলে দিলেন অনাহারীদের মুখে।

আবদুর রহমানের ছেলে ইলিয়স। তিনি বলেন, অন্যান্য ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের মতো আমার বাবাও হজে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি চিন্তা করলেন এই দুঃসময়ে যারা না খেয়ে আছেন তাদের হাতে খাবার তুলে দেওয়া উচিত।

 

আবদুর রহমানের ছেলে ইলিয়স বলেন, আমার বাবা একজন খামার শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন এবং আমার মা বাড়িতে বিড়ি তৈরি করেন। আমার বাবা বহু বছর ধরে ইসলামের পবিত্র স্থানগুলো দেখার জন্য অর্থ জমাচ্ছিলেন। হজ পালন করতে চেয়েছিলেন।

 

তিনি আরো বলেন, আমার বাবা এই দুঃসময়ে অনুভব করলেন যে অর্থ জমিয়ে রাখলে অভিশাপ বয়ে আনবে। তাই তিনি নিজের সঞ্চয় দিয়ে ক্ষুধার্তদের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

আবদুর রহমানের বানটওয়াল তালুকের গুডিনাবালি গ্রামে ২৫টি পরিবারের মাঝে চাল ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী বিতরণ করেছেন। তিনি বলেন, লকডাউনের কারণে যারা অর্থ উপার্জন করতে পারছেন না তাদের দুর্দশা দেখে আমি দুঃখ পেয়েছিলাম। তাই আমি তাদের সাহায্য করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু তিনি কি পরিমাণ অর্থের প্রয়োজনীয় সামগ্রী বিতরণ করেছেন; সেই বিষয়ে কোনো তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

 

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডয়া।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *