সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক জানিয়েছে, বিজ্ঞাপনের যেসব পোস্টের মাধ্যমে কোনও জনগোষ্ঠীর মধ্যে ‘হিংসা’ ছড়ায় তা নিষিদ্ধ করা হবে।

টুইটার সম্প্রতি বিতর্কিত পোস্টে ফ্যাক্ট-চেকিং লেবেল যোগ করায় ফেসবুক চাপে পড়ে যায়। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটি এমন পদক্ষেপ নেওয়া থেকে নিজেদের বিরত রাখে।

শুক্রবার ফেসবুক জানায়, হিংসা ছড়ানো পোস্টগুলো আর রাখা হবে না।

ফেসবুকের সিইও মার্ক জাকারবার্গ বলেছেন, যেসব পোস্টের সংবাদমূল্য আছে কিন্তু নীতিমালা-বিরোধী সেসব পোস্টে লেবেল যোগ করা হবে।

ভুয়া পোস্টের প্রতি ফেইসবুকের অবস্থান নিয়ে সমালোচনা নতুন কিছু নয়। সেটি বাড়তি মাত্রা পায় ট্রাম্পের কয়েকটি পোস্টে টুইটার ফ্যাক্ট চেকিং লেবেল যোগ করায়। ফেসবুক কেন এমনটি করবে না, সেটি নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

এমন পরিস্থিতিতে সম্প্রতি কোকা-কোলা এবং ইউনিলিভারের মতো প্রতিষ্ঠান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাদের বিজ্ঞাপন বয়কটের ঘোষণা দেয়।

জাকারবার্গ জানিয়েছেন, তাদের নতুন নীতিমালায় বর্ণবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, জাতীয়তাবাদী মনোভাব এবং লিঙ্গভেদের মতো স্পর্শকাতর বিষয় নিষিদ্ধ করা হবে।

ফেসবুকের একজন মুখপাত্র বলেন, আমাদের কমিউনিটিকে নিরাপদ রাখতে আমরা প্রতি বছর বিলিয়ন-বিলিয়ন ডলার ব্যয় করি। আমরা এসব করি যাতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তিকে শক্তিশালী করে ৯০ শতাংশ পর্যন্ত হিংসাত্মক কনটেন্ট বন্ধ করা যায়।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *