মহিলাদের জন্য কি মাহারাম নিয়ে সফর করা জরুরী ?

মহিলাদের জন্য কি মাহারাম নিয়ে সফর করা জরুরী ?

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘‘আল্লাহ ও শেষ দিবসের প্রতি যে নারী ঈমান রাখে, তার মাহরামের সঙ্গ ছাড়া একাকিনী এক দিন এক রাতের দূরত্ব সফর করা বৈধ নয়।’’ (বুখারী ও মুসলিম ) মহিলাদের মাহারাম নিয়ে সফরের ক্ষেত্রে রাসুল (সঃ) উনার জামানার সফরের হিসেব করে এই কথা বলেছিলেন যে তারা যেন মাহারাম ব্যতীত সফর না করে।
.
আপনারা খেয়াল করে দেখবেন মক্কা থেকে মদিনায় এখন সফর করতে বাসে ৫-৬ ঘন্টার মত সময় লাগে। আর যদি বুলেট ট্রেইন বানিয়ে দেওয়া হয় তাহলে আপনি ৮০-৯০ মিনিটেই পৌঁছে যেতে পারবেন। যদি প্লেনে যান তাহলে আধা ঘন্টা থেকে ৪০ মিনিটেই আপনি মক্কা থেকে মদিনায় পৌঁছে যেতে পারবেন। কিন্তু রাসুল (সঃ) এর জামানায় যদি দ্রুতভাবে কোন কাফেলা (উট-আরোহী ভ্রমণকারীর দল) মদিনা রওনা দেয় তবুও ৬-৭ দিন লাগতো। আর ঐ জামানায় আমভাবে লোকজন কাফেলার মাধ্যমেই সফর করতো আর রাতে কোন অজানা জায়গায় তাবু করে ঘুমাতে হত। স্বাভাবিকভাবেই ঐ কাফেলায় বিভিন্ন ধরনের মানুষ থাকতো। আর তাই একটা সমস্যা হওয়াটাই স্বাভাবিক। মোটকথা ভ্রমনের ব্যবস্থাই ছিলো ভিন্ন। এই কারনে রাসুল (সঃ) নারীদের ব্যাপারে এই আদেশ দিয়েছেন যে তারা যেন এমন সফরের ক্ষেত্রে মাহারাম সঙ্গে রাখে। তানাহলে হয়তো তাদের ব্যাপারে খারাপ কোন অপবাদ লেগে যেতে পারে। অথবা কোন দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। এই কারনে সেইফ হচ্ছে একজন মাহারাম সঙ্গে থাকে। এইটুকুই ছিলো কথা। কিন্তু লোকেরা এটাকে কঠিন করে ফতোয়া দিয়ে নারীদের সকল প্রকারের ভ্রমনেই হারাম ফতোয়া দিয়ে থাকে।
.
ব্যাপারটাকে আমরা এমন হাস্যকর বানিয়ে ফেলেছি যে সারাজিবন একজন এয়ারহোস্টেজ বিমানে সফর করে কিন্তু হজ্জ করতে গেলে বলা হয় মাহারাম কোথায় ? এইসকল ক্ষেত্রে মুলসিমদের কমন সেন্সও কাজ করা বন্ধ হয়ে যায়। জানিনা এমনটা কেন করে তারা।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *