দূষণ রোধে বিদ্যুৎ-চালিত বাস চান ম্যার্কেল

দুই দিনের সফরে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে এসেছেন জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল। সংক্ষিপ্ত এই সফরে যে বিষয়ে সবচেয়ে বেশি কথা শুনতে হচ্ছে ম্যার্কেলকে, সেটি হলো দিল্লির বায়ুদূষণ। গত সপ্তাহে প্রকাশিত আন্তর্জাতিক এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, দিল্লি এখন বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহর। অবস্থা লাগামছাড়া হওয়ায় গতকাল শুক্রবার জরুরি স্বাস্থ্য-সতর্কতাও জারি করতে হয়েছে রাজ্য সরকারকে। ম্যার্কেলকেও তাই কথা বলতে হয়েছে দিল্লির দূষণ নিয়ে। জরুরি এ সমস্যার একটা সমাধানও দিয়েছেন তিনি। দূষণ রোধে ডিজেলচালিত বাসের বদলে বিদ্যুৎ-চালিত বাস চালু করার কথা বলেছেন জার্মান চ্যান্সেলর।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আজ শনিবার ম্যার্কেল দিল্লির দূষণ নিয়ে কথা বলেছেন। জার্মান চ্যান্সেলর বলেছেন, গণপরিবহনগুলো কেন ডিজেলের বদলে বিদ্যুৎ দিয়ে চালানো উচিত, সেটির আদর্শ উদাহরণ দিল্লি। ভারতকে দূষণের হাত থেকে রক্ষা করতে সহায়তার হাত বাড়াবে জার্মানি, এমন ঘোষণাও দিয়েছেন তিনি। ম্যার্কেল বলেছেন, ‘তামিলনাড়ুর গণপরিবহন খাতে সংস্কারের জন্য আমরা ২০০ মিলিয়ন ইউরো দেব। গতকাল যাঁরাই দিল্লির দূষণের অবস্থা দেখেছেন, তাঁরা সবাই বুঝবেন কেন গণপরিবহনগুলো ডিজেলের বদলে বিদ্যুৎ দিয়ে চালানো উচিত।’

গত দুই বছরের মধ্যে দিল্লি বায়ুদূষণের দিক থেকে অন্যতম ভয়াবহ দিন পার করেছে গতকাল। গতকাল বিকেল চারটার দিকে এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সে দিল্লির স্কোর উঠেছিল ৪৮৪। আজ সকালে অবশ্য পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। আপাতত জরুরি অবস্থা থেকে বের হয়ে এসেছে, তবে পরিস্থিতি এখনো স্বাভাবিক হয়নি। দূষণের কারণে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হচ্ছে, স্কুলগুলোও ৫ নভেম্বর পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

গতকাল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও আঙ্গেলা ম্যার্কেলের মধ্যে বাণিজ্য, জলবায়ু খাত, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসহ বিভিন্ন খাতে পাঁচটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। আজই জার্মানির উদ্দেশে রওনা হওয়ার আগে ম্যার্কেল দ্বারকা সেক্টর ২১ মেট্রো স্টেশন পরিদর্শন করবেন। ওই মেট্রো স্টেশনের সোলার প্যানেলগুলোর অর্থায়ন করেছে জার্মান সরকার।

এর আগে গতকাল ম্যার্কেল বলেছেন, অবকাঠামোগত প্রকল্প, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও পানি সরবরাহ বিষয়ে ভারতের সঙ্গে কাজ করতে চায় জার্মানি। ইউরোপীয় দেশগুলোর মধ্যে জার্মানিই ভারতের সবচেয়ে বড় ব্যবসায়িক অংশীদার। ১ হাজার ৭০০টির বেশি জার্মান প্রতিষ্ঠান ভারতে বিনিয়োগ করেছে।

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *