আর্জেন্টিনা দলে মেসি-আগুয়েরো, নেই ডি মারিয়া-ইকার্দি

ইকুয়েডর ও বলিভিয়ার বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচ খেলার জন্য ২৩ সদস্যের দল ঘোষণা করেছেন আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনি। দলে আছে বেশ কিছু চমক
পরিচিত মুখগুলোকে নিয়েই বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের জন্য দল সাজিয়েছেন আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনি। দলে যথারীতি আছেন লিওনেল মেসি ও সার্জিও আগুয়েরোর মতো তারকারা। তবে জায়গা হয়নি পিএসজির দুই ফরোয়ার্ড অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া ও মাউরো ইকার্দির।
আগামী ২৬ মার্চ বোকা জুনিয়র্সের মাঠ লা বোম্বানেরায় ইকুয়েডরের বিপক্ষে খেলতে নামবেন মেসিরা। ৩১ মার্চ বলিভিয়ার এস্তাদিও হার্নান্দো সিলেসে বাছাইপর্বের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা।
ইকার্দি ও ডি মারিয়া ছাড়াও আরও বেশ কিছু নিয়মিত মুখকে দলে রাখেননি স্কালোনি। এদের মধ্যে রয়েছেন পোর্তোর গোলরক্ষক অগুস্তিন মার্চেসিন, বোকা জুনিয়র্সের গোলরক্ষক এস্তেবান আনদ্রাদা ও রিভার প্লেটের গোলরক্ষক ফ্রাঙ্কো আরমানি। গোলরক্ষক হিসেবে শুধু ইতালিয়ান ক্লাব হুয়ান মুসো ডাক পেয়েছেন। বিকল্প গোলরক্ষক হিসেবে আরও অন্তত দুজনকে ডাকবেন স্কালোনি। সে ক্ষেত্রে আনদ্রাদা ও বিশ্বকাপে খেলা আরমানির ভাগ্য খুলতেও পারে।
টটেনহামের দুই তারকা এরিক লামেলা ও হুয়ান ফয়থও দলের বাইরে। বাদ পড়েছেন অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের ফরোয়ার্ড অ্যানহেল কোরেয়াও। এক অ্যালেক্সিস ম্যাক অ্যালিস্টার ছাড়া আর্জেন্টিনার ক্লাবগুলোতে খেলা কোনো খেলোয়াড়কে দলে রাখেননি স্কালোনি। দলে ডাক পাওয়া সবাই ইউরোপে খেলেন। আর্জেন্টিনায় খেলা খেলোয়াড়দের পরে দলে নিলেও নিতে পারেন কোচ।
দলের প্রধান চমক, জার্মান ক্লাব স্টুটগার্টের ২১ বছর বয়সী স্ট্রাইকার নিকোলাস গঞ্জালেজের অন্তর্ভুক্তি। স্টুটগার্টের হয়ে ৪০ ম্যাচে ছয় গোল করা এই ফরোয়ার্ড জাতীয় দলে এর আগে তিন ম্যাচ খেলে কোনো গোল করতে পারেননি। দলে ডাক পাওয়ার চোটে পড়েছে বেয়ার লেভারকুসেনের স্ট্রাইকার লুকাস আলারিও। ফলে তাঁর জায়গায় অন্য একজনকে নিতে পারেন স্কালোনি।
কোপা আমেরিকার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে লাল কার্ড দেখায় ইকুয়েডরের বিপক্ষে মেসির খেলা হবে না। এক ম্যাচ নিষেধাজ্ঞায় কাটিয়ে বলিভিয়ার বিপক্ষে ফেরার কথা তাঁর।
আর্জেন্টিনা দল
গোলরক্ষক: হুয়ান মুসো (উদিনেসে)
ডিফেন্ডার: নেহুয়েন পেরেজ (এফসি ফামালিকাও), নিকোলাস ওটামেন্ডি (ম্যানচেস্টার সিটি), রেনজো সারাভিয়া (ইন্তারনাসিওনাল), জার্মান পেজ্জেলা (ফিওরেন্টিনা), নিকোলাস তাগলিয়াফিকো (আয়াক্স), লিওনার্দো বালের্দি (বরুসিয়া ডর্টমুন্ড)
মিডফিল্ডার: গিদো রদ্রিগেজ (রিয়াল বেতিস), রবার্তো পেরেইরা (ওয়াটফোর্ড), ইজেকিয়েল পালাসিওস (বেয়ার লেভারকুসেন), রদ্রিগো ডি পল (উদিনেসে), মার্কোস আকুনিয়া (স্পোর্টিং লিসবন), লিয়ান্দ্রো পারেদেস (পিএসজি), নিকোলাস ডমিঙ্গেজ (বোলোনিয়া), জিওভানি লো সেলসো (টটেনহাম)
ফরোয়ার্ড: লিওনেল মেসি (বার্সেলোনা), সার্জিও আগুয়েরো (ম্যানচেস্টার সিটি), পাওলো দিবালা (জুভেন্টাস), লওতারো মার্টিনেজ (ইন্টার মিলান), লুকাস ওকাম্পোস (সেভিয়া), লুকাস আলারিও (লেভারকুসেন), নিকোলাস গঞ্জালেজ (স্টুটগার্ট), অ্যালেক্সিস ম্যাক অ্যালিস্টার (বোকা জুনিয়র্স)

You May Also Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *